খেলাধুলা

আমি পাকিস্তান দলের মা নই: সানিয়া মির্জা ?

ভারত-পাকিস্তান গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচের আগে রাত ২টার দিকে সীসা বারে ছিলেন পাকিস্তান জাতীয় দলের কয়েকজন তারকা ক্রিকেটার। এসময় পাকিস্তানি অলরাউন্ডার শোয়েব মালিক, তার স্ত্রী ভারতের টেনিস তারকা সানিয়া মির্জা, ফাস্ট বোলার ওয়াহাব রিয়াজ ও ব্যাটসম্যান ইমাম-উল-হককে ম্যানচেস্টারের একটি সীসা বারে দেখা যায়।

প্রিয় পাঠক আমাদের পেজে লাইক দিয়ে আমাদের সাথে থাকুন

এ বিষয়ে পাকিস্তানি অভিনেত্রী ভীনা মালিক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ক্রিকেটারদের জন্য উদ্বেগ প্রকাশ করে সানিয়া মির্জাকে উদ্দেশ্য করে একটি মন্তব্য করলে ‘পাকিস্তানি ক্রিকেট টিমের ডায়েটিশিয়ান কিংবা মা নই’ উল্লেখ করে সে মন্তব্যের উত্তর দিয়েছেন সানিয়া মির্জা।

ঐদিন রাতে কয়েকজন ক্রিকেটভক্ত দাবি করেন, তারা রাত ২টার দিকে শোযেব মালিককে সীসা গ্রহণ করতে দেখেছেন। এছাড়া অন্য ক্রিকেটারদেরও বার্গার-পিজ্জার মতো ‘জাঙ্ক ফুড’ খেতে দেখা গেছে। এ বিষয়ে সানিয়া মির্জাকে উদ্দেশ্য করে টুইটারে একটি পোস্ট করে ভিনা মালিক।

পোস্টে তিনি লেখেন- ‘সানিয়া, আমি আসলেই ছেলেদের নিয়ে খুবই চিন্তিত। তুমি যে তাদের সীসা বারে নিয়ে গিয়েছো এটা কি বিপজ্জনক নয়? আমি যতদূর জানি এগুলো অ্যাথলেটদের জন্য ভালো নয়। অন্তত একজন মা হিসেবে এবং একজন ভালো ক্রীড়াবিদ হিসেবে তুমি নিজে সেটা জানো না?’

টুইটারে ভীনা মালেকের মন্তব্যটি সানিয়া মির্জাকে বেশ বিরক্ত করেছে বলেই মনে হয়। আর তাইতো তিনি সে খেলোয়াড়দের এবং তার বাচ্চাদের সম্পর্কে ‘অন্য কারো চেয়েও বেশি’ উদ্বিগ্ন উল্লেখ করে তার উত্তর দিয়েছেন।

টুইটারে সানিয়া তার পোস্টে লেখেন, ‘ভীনা, আমি আমার বাচ্চাকে কখনোই একটি সীসা বারে নিয়ে যাইনি। এতে আপনার বা বিশ্বের বাকি কারও নাক গলানোর যুক্তি নেই, কারণ আমি মনে করি আমার বাচ্চাকে অন্য কারো তুলনায় আমি অনেক বেশি গুরুত্ব দেই। আর আমি পাকিস্তান ক্রিকেট দলের ডায়েটিশিয়ান নই। আর না আমি তাদের মা! না অধ্যক্ষ, না শিক্ষক।’

এর কিছু পরে সানিয়া মির্জা ভীনা মালিকের পোস্টকে উদ্দেশ্য করে আরো দুটি মন্তব্য করেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। এরমধ্যে প্রথমটিতে ভীনাকে উদ্বেগ প্রকাশ করার জন্য ধন্যবাদ জানিয়ে তিনি লিখেছেন, ‘তারা কখন ঘুমাতে যায়, কখন জেগে ওঠে এবং কী খায়, সেসব ব্যাপারে আপনার উদ্বেগ প্রকাশের জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।’

দ্বিতীয় পোস্টে মির্জা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম থেকে বিরতি নেওয়ার ঘোষণা দেন। আর নিজেদের হতাশাগুলো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নয়, বরং অন্য কোথাও প্রকাশ করা উচিত উল্লেখ করে তিনি লেখেন, ‘টুইটারের কিছু পোস্ট আমাকে বেশ হতাশ করেছে। কিছু মানুষের হতাশা প্রকাশের জন্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের বাইরেও কিছু থাকা উচিত। আপনারা আনন্দ করুন, এটা আমার জন্য বিশ্রামের সময়।’

যদিও রাতে বাইরে থাকাটা কোনো অপরাধ নয়। তবু, অনেক ক্রিকেটভক্তই তা মানতে নারাজ। তাদের মতে, রাতে বাইরে আড্ডা দেওয়া, সীসা-জাঙ্ক ফুড খাওয়ায় ক্রিকেটারদের মনোসংযোগ ও ফিটনেস নষ্ট হয়েছে। আর, এর প্রভাব পড়েছে ম্যাচের পারফরমেন্সে।

ভক্তদের দাবি অবশ্য একেবারে অস্বীকার করারও উপায় নেই। ভারত-পাকিস্তান মহারণে শোয়েব মালিক কোনো রান না করে আউট হয়েছেন প্রথম বলেই, ইমাম-উল-হক করেছেন ১৮ বলে ৭ রান, আর ওয়াহাব রিয়াজ ১০ ওভারে ৭১ রান দিয়ে পেয়েছেন মাত্র এক উইকেট।

প্রিয় পাঠক আপনার মতামত জানান

এ বিভাগের আরো খবর

Close