বিনোদন

আচ্ছা এটা কি সানি লিওনের ফোন নম্বর?

দিনরাত শুধুই ফোন বাজছে। রিসিভ করতেই ওপার থেকে শোনা যায়, ‘হ্যালো, সানি লিওন বলছেন?’ কেটে দিতে না দিতেই আবার বেজে ওঠে রিংটোন। এবার রিসিভ করতেই শোনা গেল, ‘আচ্ছা এটা সানি লিওনের ফোন নম্বর?’ বিরক্তির চূড়ান্ত সীমানা পেরিয়ে আবার কেটে দিতে না দিতেই বেজে ওঠে রাতের ঘুম হারাম করা হতচ্ছাড়া সেই মুঠোফোনটি। রিসিভ করতেই ওপাশ থেকে যথারীতি ‘সানি লিওনের সঙ্গে এক মিনিটের জন্য একটু কথা বলা যাবে?’, এভাবে দিনে অন্তত ১০০ বার! এমন কাণ্ডে ফোনের মালিক শেষে নিরুপায় হয়ে আদালতে পিটিশন দায়ের করেছেন।

প্রিয় পাঠক আমাদের পেজে লাইক দিয়ে আমাদের সাথে থাকুন

ব্রিটিশ গণমাধ্যম বিবিসি’র এক প্রতিবেদনে বলা হয়, ওই বিড়ম্বনায় পড়েছেন পুনিত আগারওয়াল নামের ভারতীয় এক তরুণ। ঘটনার সূত্রপাত গত ২৬ জুলাই, ‘অর্জুন পাটিয়ালা’ নামের এক ছবি মুক্তির মধ্য দিয়ে। ছবিটির অপেশাদারিত্ব একটি ভুলের শিকার হওয়ায় ভুগতে হচ্ছে ২৬ বছর বয়সী ওই তরুণকে।

ভুলটি হলো, ছবিটির একটি মুহূর্তে দেখা যায়, বলিউডের শীর্ষ আবেদনময়ী সানি লিওন একজনকে তার ফোন নম্বর দিচ্ছেন। তবে সেই ফোন নম্বরটিই ছিল পুনিত আগারওয়ালের। ভারত তো বটেই, ইতালি, দুবাই, পাকিস্তান, অস্ট্রেলিয়াসহ বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে বহু মানুষ ভাবছেন হয়ত সেটাই সানি লিওনের ফোন নম্বর!

ক্ষুদ্ধ পুনিত আগারওয়াল জানান, প্রথম দশবার ফোন রিসিভ করেও তিনি বুঝতে পারেননি ঘাপলাটা কোথায়। পরে অবশ্য বিষয়টা তাকে ব্যাখা করে সানি লিওন ভেবে ফোন দেওয়া আহাম্মকরাই।দুই থেকে তিন মিনিট পরপর সেই ফোন বেজে আসে। এতে করে শান্তিতে একটু ঘুমাতে পারছেন না, খেতে পারছেন না, এমনকি সাধের ফোনটি একটু টিপতেও পারছেন না পুনিত।

ওই মুঠোফোন নম্বরটি ব্যবসায় কাজে ব্যবহার করছেন বলে পরিবর্তন করতে পারছেন না জানিয়ে উষ্মা প্রকাশ করে পুনিত বলেন, ‘তাদের উচিৎ ছিল নম্বরটি সংলাপে ব্যবহারের আগে ফোন দিয়ে যাচাই করা।’এ নিয়ে বাধ্য হয়ে থানায়ও অভিযোগ জানাতে গিয়েছিলেন পুনিত আগারওয়াল। তাকে পুলিশ জানায়, এতে তাদের কিছু করার নেই। পরে সিনেমাটি থেকে তার ফোন নম্বর সরিয়ে নিতে আদালতের শরণাপন্ন হয়ে একটি পিটিশন দায়ের করেছেন সেই তরুণ।

তবে এ বিষয়ে ছবির পরিচালক রোহিত যাগরাজ কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

প্রিয় পাঠক আপনার মতামত জানান

এ বিভাগের আরো খবর

Close
Close