শিরোনাম
হোম / আন্তর্জাতিক / হজ নিয়ে কাতার-সৌদির বাক যুদ্ধ!

হজ নিয়ে কাতার-সৌদির বাক যুদ্ধ!

ইসলামের অন্যতম স্তম্ভ হজ নিয়ে এবার কাতারের সঙ্গে বাকযুদ্ধে জড়িয়েছে সৌদি আরব। কাতার হজের পবিত্র স্থানগুলোর আন্তর্জাতিকীকরণের দাবি জানিয়েছে মন্তব্য করে এটাকে সৌদি আরবের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণার শামিল বলে মন্তব্য করেছেন সৌদি পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

রোববার সৌদি আরবের রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন আল আরাবিয়া টেলিভিশন জানিয়েছে কাতার হজের পবিত্র স্থানগুলোর আন্তর্জাতিকীকরণের দাবি জানিয়েছে। তবে এ ধরনের কোনো আহ্বান জানানোর কথা অস্বীকার করেছে কাতার। আল আরাবিয়ার উদ্ধৃতি দিয়ে সৌদি পররাষ্ট্রমন্ত্রী আদেল আল জুবেইর রোববার বলেন,

‘পবিত্র স্থানগুলোকে আন্তর্জাতিকীকরণে কাতারের দাবি আক্রমণাত্মক এবং সৌদি আরবের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা। যারাই পবিত্র স্থানগুলোর আন্তর্জাতিকীকরণের জন্য কাজ করছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের অধিকার আমাদের রয়েছে।’ অন্যদিকে কাতারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ বিন আবদুল রহমান আল থানি বলেন, তার দেশের কোনো সরকারি কর্মকর্তা এ ধরনের কোনো আহ্বান জানাননি।

আলজাজিরা টেলিভিশনকে তিনি বলেন, ‘মিথ্যা তথ্যের জবাব দেয়ার চেষ্টা করছি আমরা। শূন্য থেকে এসব গল্প বানানো হচ্ছে।’ পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা মিথ্যা তথ্য ও গালগল্পের জবাব দিতে দিতে ক্লান্ত হয়ে পড়েছি অথচ এসবের কোনো ভিত্তি নেই।’ আবদুল রহমান আরও বলেন, ‘সৌদি পররাষ্ট্রমন্ত্রী কাতারের বিরুদ্ধে ভিত্তিহীন অভিযোগ তুলে তাকে ‘যুদ্ধ ঘোষণার শামিল’ বলে যে মন্তব্য করেছেন তার মাধ্যমে পরিষ্কার হয়েছে- তারা অনমনীয় অবস্থানে রয়েছেন।

এছাড়া, এ বক্তব্যের মাধ্যমে এও পরিষ্কার হচ্ছে যে, চার আরব দেশ কাতারের সঙ্গে চলমান সংকট বাড়ানোর পরিকল্পনা নিয়েছে।’ সৌদি আরব হজকে রাজনৈতিকভাবে ব্যবহার করে ধর্মীয় স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ করছে বলে শনিবার জাতিসংঘের বিশেষ দূতের কাছে অভিযোগ করেছে কাতার।

চলতি বছর হজ গমনেচ্ছু কাতারিদের যে বাধাগুলোর মুখোমুখি হতে হচ্ছে তা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে দেশটি। কাতার থেকে এবার ২০ হাজার লোক হজের জন্য নিবন্ধন করেন। কিন্তু সম্প্রতি সৌদি আরব জানায় যে, তারা কাতারিদের নিরাপত্তার কোনো গ্যারান্টি দিতে পারবে না।

উপরন্তু কাতারিদের শুধু সৌদি আরবের দুটি বিমানবন্দর দিয়ে হজে যাওয়ার অনুমতি দেয়া হয়েছে। কাতারের যেসব নাগরিক বিদেশে রয়েছেন তাদের প্রথমে নিজের দেশে ফিরে গিয়ে হজে যেতে হবে। আর কাতার এয়ারওয়েজের কোনো বিমান সৌদিতে প্রবেশ করতে পারবে না।

এছাড়া কাতারের সঙ্গে ৫ জুন স্থল সীমান্ত বন্ধ করে দিয়েছে সৌদি আরব। ফলে স্থলপথেও কাতারের লোকজন হজে যেতে পারছে না। সৌদি আরব কাতারের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করায় কাতারি নাগরিকদের সুবিধা-অসুবিধা দেখার জন্য সেখানে দেশটির কোনো বৈধ কর্তৃপক্ষও নেই।

কাতারের বিরুদ্ধে জঙ্গিবাদে মদদ দেয়ার অভিযোগ তুলে দেশটির সঙ্গে ৫ জুন কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করে সৌদি আরব ও তার মিত্র সংযুক্ত আরব আমিরাত, মিসর ও বাহরাইন। পাশাপাশি সড়ক, জলপথ ও বিমানপথে দেশটির সঙ্গে সব ধরনের যোগাযোগ বন্ধ করে দেয় তারা।

এছাড়া মুসলিম ব্রাদারহুডকে সমর্থন বন্ধ করা, দোহাভিত্তিক সংবাদ চ্যানেল আলজাজিরা বন্ধ, কাতারে তুরস্কের সামরিক ঘাঁটি সরানো ও শত্রুদেশ ইরানের সঙ্গে সম্পর্ক সীমিত করাসহ ওই চারটি দেশ কাতারের কাছে ১৩টি দাবি পেশ করে।

এ দাবিগুলো মানলে কাতারের ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়া হবে বলে জানায় তারা। দাবিগুলোকে সার্বভৌমত্ববিরোধী অভিহিত করে তা প্রত্যাখ্যান করে কাতার। দাবিগুলো প্রত্যাখ্যান করলেও আলোচনার পথ খোলা আছে বলে জানায় দেশটি।

Facebook Comments

About Kalam Khan

www.myhostit.com