শরিয়া আইনের নামে ইন্দোনেশিয়ায় ৫০০ জনকে বেত্রাঘাত

গত দুই বছরে ইন্দোনেশিয়ায় ৫০০ জনেরও বেশি লোককে বেত্রাঘাত করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছে একটি মানবাধিকার সংস্থা। বিবিসির সংবাদ।

উল্লেখ্য, ইন্দোনেশিয়ার আচেহ প্রদেশের একাংশে শরিয়া আইনের নামে এ শাস্তির প্রচলন আছে। বিশ্বের বৃহৎ মুসলিম জনগোষ্ঠীর দেশটির প্রেসিডেন্টকে এ ‘বর্বর’ শাস্তির অবসান ঘটাতে আহবান করেছে মানবাধিকার সংস্থা হিউম্যান রাইটস ওয়াচ।

২০০৬ সালে এ অঞ্চলে বিচ্ছিন্নতাবাদীদের সাথে শান্তিচুক্তির মাধ্যমে স্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়। কিন্তু দিনকে দিন সেখানে প্রশাসনিকভাবে রক্ষণশীলতা বৃদ্ধি পাচ্ছে। বিশেষ করে সমকামিতা ও বিবাহ বহির্ভূত যৌন সম্পর্কের জন্য কঠোর শাস্তি প্রদান করা হয়।

কথিত শরিয়া আইনে পরিচালিত প্রদেশটিতে চালু করা হয়েছে শরিয়া টহল পুলিশ। প্রকাশ্যে কোন নারী পুরুষ হাত ধরাধরি করে হাঁটলে, গা ঘেঁষাঘেঁষি করে থাকলে বা আপত্তিকর অবস্থায় পাওয়া গেলে তাৎক্ষনাৎ শাস্তি দিচ্ছে তারা।

২০১৫ সালের অক্টোবর থেকে চালু করা ইসলামি শরিয়া আইনে প্রদেশটিতে বিচার ব্যবস্থারও পরিবর্তন এনেছে। যার ফলে সমলিংগের যৌনাচারের জন্য ১০০ বেত্রাঘাত এবং বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্কের জন্য ৩০ বেত্রাঘাত দেয়া হয় শাস্তি হিসেবে।

হিউম্যান রাইটস ওয়াচ সতর্ক করে দেয় যে এই আইনগুলি মুসলমানদের পাশাপাশি অমুসলিমদেরও ওপরেও প্রয়োগ করা হচ্ছে। বিশেষ করে জুয়া ও মদ খাওয়ার অপরাধের জন্য। গত বছর মদ বিক্রির অভিযোগে এক খ্রীস্টান নারীকে বেত্রাঘাত করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, ইন্দোনেশিয়ার মত সৌদি আরব, ইরান, সুদান, মালদ্বীপ, মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর এবং ব্রুনাইতেও এ ধরণের বেত্রাঘাতের শাস্তির প্রচলন আছে। অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল মতে, এটি এক ধরণের শারীরিক নির্যাতন। তারা এটি বন্ধের জন্য প্রচারণা চালিয়ে আসছে।

Loading...