বাংলাদেশকে এগিয়ে নিচ্ছেন সাব্বির

দক্ষিণ আফ্রিকায় বাংলাদেশকে এগিয়ে নিচ্ছেন সাব্বির রহমান। তিনি ইতোমধ্যেই হাফসেঞ্চুরি করে ফেলেছেন। দক্ষিণ আফ্রিকা আমন্ত্রিত একাদশের বিরুদ্ধে দ্বিতীয় ইনিংসে বাংলাদেশের সংগ্রহ এখন ৬ উইকেটে ১৮৫ রান। বাংলাদেশ এখন সার্বিকভাবে এগিয়ে ১৭৮ রানে এগিয়ে রয়েছে। আজই ম্যাচের শেষ দিন। এরপর আগামী বৃহস্পতিবার দুই দেশের মধ্যে প্রথম টেস্ট শুরু হবে।

এখন সাব্বির রহমান ৫৬ এবং তাইজুল ইসলাম ১ রানে ব্যাট করছেন।
এর আগে ইমরুল কায়েস ৫১ রানের একটি ইনিংস খেলেন।

বাংলাদেশ সময় দুপুর ২টায় ম্যাচের তৃতীয় দিনের খেলা শুরু হয়।
দ্বিতীয় দিন ৭ রানের লিড নিয়ে ৩১৩ রানে নিজেদের প্রথম ইনিংস ঘোষণা করে দক্ষিণ আফ্রিকা।
এর আগে ৩০৬ রানে প্রথম ইনিংস ঘোষণা করে বাংলাদেশে।

কঠিন চ্যালেঞ্জ তবুও স্বপ্নে বিভোর মুশফিক!
দক্ষিণ আফ্রিকা আমন্ত্রিত একাদশের বিরুদ্ধে তিন দিনের টেস্ট প্রস্তুতি ম্যাচ খেলছে বাংলাদেশের। এ ম্যাচের জয়-পরাজয়ের কোনো গুরুত্ব নেই। তবে আত্মবিশ্বাসী হওয়া ও নিজেদের লাইন ও নিশানা ঠিক করতে অনেক গুরুত্ব বহন করে। মুশফিকরা তাই করছেন। প্রথম দিনে তামিম ইকবালের মাংসপেশীতে টান পড়ায় তাকে নিয়ে কিছুটা চিন্তা আছে বৈকি। তবে সেটি মূল ম্যাচের আগেই সেরে উঠতে সমস্যা হওয়ার কথা না। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সিরিজে ভালো কিছুর প্রত্যাশায় টিম বাংলাদেশ। নিজেদের ওপর আত্মবিশ্বাস ছাড়াও দক্ষিণ আফ্রিকায় সবাই কিছু না কিছু রান করছেন। বোলাররাও একেবারে মন্দ করছেন না।

এ ছাড়াও প্রতিপক্ষের ক’জন তারকা খেলোয়াড়ের অনুপস্থিতি টেস্ট সিরিজে ভালো কিছু করার সুযোগ দেখছেন বাংলাদেশ অধিনায়ক মুশফিকুর রহীম। প্রোটিয়া দলের দুই তারকা পেসার ডেল স্টেইন ও ভারনন ফিল্যান্ডার এবং অন্যতম ব্যাটসম্যান এবি ডি ভিলিয়ার্স না থাকায় মুশফিকদের আরেকটু উজ্জীবিত করেছে।

এ ব্যাপারে বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক মুশফিকুর রহীম বলেন, হয়তো! ফাস্ট বোলার স্টেইন, ফিল্যান্ডার ও ক্রিস মরিস দলে না থাকাটা বাংলাদেশ দলের জন্য অবশ্যই একটা বড় সুযোগ বৈকি!। তবে তারকাদের অনুপস্থিতি বাংলাদেশের জন্য উৎসাহজনক হলেও নিজের মাটিতে প্রোটিয়ারা ভয়ানক।

মুশফিক বলেন, ‘বেশ কিছু ভালো বোলার ও ব্যাটসম্যান থাকলেও দক্ষিণ আফ্রিকা এখনো শক্তিশালী দল বলে আমি মনে করি। এটি দলগত খেলা এবং এখনো তাদের দলটি খুবই ব্যালান্ডস ও শক্তিশালী। তার পরও সিরিজটি চ্যালেঞ্জিং হবে। স্টেইন ও ফিল্যান্ডার না থাকায় আমরা সম্ভবত কিছুটা এগিয়ে থাকব।’

আসলে নিজ মাটিতে সবারই এক্সট্রা একটা সাহস-শক্তি কাজ করে। প্রোটিয়া স্কোয়াডে রাখা হয়েছে দুই নতুন মুখ। মুশফিক বলেন, ‘নিজ কন্ডিশনে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে খেলাটা মোটেই সহজ হবে না। দেশের মাটিতে অস্ট্রেলিয়ার সাথে সিরিজ ১-১ ড্র করার পর এটা আমাদের পরবর্তী একটা ধাপ। আমরা দেশের বাইরে ভালো করতে চাই এবং এটি আমাদের জন্য একটি বড় সুযোগ।’

সাম্প্রতিক সময়ে টেস্ট ক্রিকেটে দারুণ নৈপুণ্য দেখাচ্ছে বাংলাদেশ। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে নিজ মাঠে ১-১ ব্যবধানে সিরিজ ড্র করে উজ্জীবিত মুশফিক-তামিমরা। গত দুই বছরে সব ভার্সনে ভালো করছে মুশফিকের দল। নিজ মাঠে ইংল্যান্ডকে হারানোর পর শ্রীলঙ্কার মাটিতে হারিয়েছে লঙ্কাকে। একই ধারাবাহিকতা দক্ষিণ আফ্রিকায়ও অব্যাহত রাখতে চায় বাংলাদেশ। দক্ষিণ আফ্রিকা দলের বোলিং লাইন সবচেয়ে ডেঞ্জার মরনে মরকেল ও কাগিসো রাবাদা। তিনি বলেন, ‘দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে খেলা সব দলের জন্যই কঠিন। ফাস্ট বোলাররা ও আমরা তাদের বিরুদ্ধে মানিয়ে নেয়াই হবে আমাদের মূল চ্যালেঞ্জ। দল হিসেবে বিদেশের মাটিতে আমরা খুব বেশি টেস্ট খেলিনি। তবে গত আড়াই বছরে আমরা দল হিসেবে উন্নতি করছি। এটি আমাদের পরবর্তী ধাপ।’

বলার অপেক্ষা রাখে না, বাংলাদেশ দলের অন্যতম সেরা পারফরমার সাকিব আল হাসান। কিন্তু এ স্কোয়াডে নেই তিনি। সাকিব বিশ্রামে গেছেন। এতে বাংলাদেশ দলে কিছুটা হলেও দুর্বল। মুশফিক সেটা স্বীকারও করেছেন। তিনি বলেন, ‘সাকিব আসলেই একজন বিশেষ খেলোয়াড় এবং কাউকে দিয়ে তার স্থান পূরণ করা সম্ভব নয়। কিন্তু নিজেদের দক্ষতা প্রমাণে দলে জায়গা পাওয়াদের একটা সুবর্ণ সুযোগ।’

উল্লেখ্য, তিন দিনের প্রস্তুতি ম্যাচের আজ শেষ দিন। এ দিন বাংলাদেশের ব্যাটিংয়ের জবাবে স্বাগতিক একাদশ ৩১৩/৮ রান করে ইনিংস ডিক্লেয়ার করে। শফিউল নেন দুই উইকেট। অন্যরা নেন একটি করে উইকেট। এরপর বাংলাদেশ দ্বিতীয় ইনিংস খেলতে নেমে দিন শেষে ৬ রান করেছে বিনা উইকেটে। ইমরুল কায়েস ও লিটন দাস ইনিংসের সূচনা করেন।

Loading...