চসিকের গৃহকর আপিল শুনানি ও অ্যাসেসমেন্ট স্থগিত

চট্টগ্রাম মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্তের পরিপ্রেক্ষিতে পঞ্চবার্ষিক গৃহকর পুনর্মূল্যায়নে ধার্য করা প্রাথমিক ভ্যালুর ওপর আপিল শুনানি স্থগিত করেছে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক)।

সোমবার (২৭ নভেম্বর) চসিকের রাজস্ব সার্কেল-২ এর অধীন ২৫১ জন হোল্ডারকে নোটিশ ইস্যু করলেও শুনানি হয়নি।

মেয়রের পক্ষে আপিল রিভিউ বোর্ডে সভাপতিত্ব করছিলেন কাউন্সিলর হাবিবুল হক। শুনানি না হওয়া প্রসঙ্গে তিনি বাংলানিউজকে বলেন, আমার ভাই ইন্তেকাল করেছেন। নিজেও অসুস্থ বোধ করছিলাম। তাই শুনানিতে যাইনি।

রাজস্ব সার্কেল-২ এর কর কর্মকর্তা মো. কামরুল ইসলাম চৌধুরী বাংলানিউজকে জানান, আমরা ২৫১ জন হোল্ডারকে শুনানিতে অংশ নিতে নোটিশ ইস্যু করেছিলাম। সকালে শুনানি হবে না জানতে পেরে যাদের টেলিফোন নাম্বার ছিল তাদের বিষয়টি অবহিত করেছি।

চসিকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মো. সামসুদ্দোহার কাছে এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে বাংলানিউজকে বলেন, সব সিটি করপোরেশনে ট্যাক্স অটোমেশনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এটি সম্পূর্ণ না হওয়া পর্যন্ত অ্যাসেসমেন্ট কার্যক্রম যে অবস্থায় আছে সেখানে স্থগিত থাকবে। এরপর আবার সেখান থেকে অ্যাসেসমেন্ট কার্যক্রম শুরু হবে। মন্ত্রণালয়ে রোববার (২৬ নভেম্বর) এক বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত হয়েছে। আমরা চিঠি পেলে বিস্তারিত জানতে পারব।

তিনি বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশের অংশ হিসেবে এ অটোমেশন হচ্ছে। এর সুফল করদাতারা যেমন পাবেন তেমনি চসিকও পাবে। তখন ঘরে বসে যে কেউ তার গৃহকর কত জানতে পারবেন, বিশ্বের যেকোনো প্রান্ত থেকে অনলাইনে পরিশোধ করতে পারবেন।

Loading...