গরম খুন্তি দিয়ে শিশুকে ছ্যাঁকা: রিমান্ডে স্বামী, কারাগারে অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী

Google+ Pinterest LinkedIn Tumblr +

নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লায় অনাথ শিশু মাহিকে (৮) খুন্তি গরম করে ছ্যাঁকা ও নির্যাতনের ঘটনায় অভিযুক্তদের মধ্যে আতাউল্লাহ খোকনের বিরুদ্ধে দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। একই সময় খোকনের স্ত্রী উর্মি আক্তার নিজেকে সাত মাসের অন্তঃসত্ত্বা দাবি করায় আদালত তার বিরুদ্ধে পুলিশের রিমান্ড আবেদন নামঞ্জুর করেছেন।

সোমবার সকালে নারায়ণগঞ্জ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মেহেদী হাসানের আদালতে রিমান্ড শুনানি অনুষ্ঠিত হয়।

কোর্ট পুলিশের এসআই হানিফ বলেন, রবিবার বিকালে নারায়ণগঞ্জ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আবতাবুজ্জামানের আদালত মাহির জবানবন্দি গ্রহণ করে অভিভাবক না পাওয়ায় তাকে শিশু কিশোর উন্নয়ন সংশোধনাগার গাজীপুরে নিরাপদ হেফাজতে পাঠিয়েছে।

নির্যাতনের ঘটনায় শনিবার বিকালে প্রতিবেশী জাকির হোসেন শনি বাদী হয়ে গৃহকর্তা আতাউল্লাহ খোকন ও উর্মি দম্পতির বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। এর আগে শুক্রবার রাতে শিশুটিকে উদ্ধার করা হয়।

আটক আতাউল্লাহ খোকন কুমিল্লা জেলার হোমনা থানার কাশিপুর গ্রামের মৃত. আ. হাকিম মিয়ার ছেলে। আর উর্মি আতাউল্লাহ খোকনের স্ত্রী।

মামলা সূত্রে জানা যায়, ফতুল্লার পূর্ব ইসদাইর আনন্দনগর এলাকার শহীদুল্লাহর বাড়ির ভাড়াটিয়া আতাউল্লাহ খোকন ও উর্মি আক্তারের বাসায় ৩ মাস ধরে পিতামাতাহীন শিশু মাহিকে গৃহপরিচারিকা হিসেবে কাজে নেয়। এরপর থেকে শিশুটি বাসায় প্রায় সময় কান্নাকাটি করত। শুক্রবার রাতে বাঁচাও বাঁচাও চিৎকার শুনে স্থানীয় লোকজনকে নিয়ে ওই দম্পতির বাসায় গিয়ে শিশুটিকে উদ্ধার করে থানায় খবর দেয় জাকির শনি। পরে পুলিশ গিয়ে শিশুটির হাতে ও মুখে বর্বর নির্যাতনের চিহ্ন দেখতে পায়। তখন শিশুটিকে জিজ্ঞেস করলে সে জানায়, তাকে কারণে-অকারণে কাজে ভুল ধরে খুন্তি গরম করে হাতে ও শরীরে ছ্যাঁকা দিত। কথায় কথায় মারধর করত। ২০-২৫ দিন আগে তার হাতে গরম খুন্তি দিয়ে ছ্যাঁকা দেয়ায় তার ডান হাতের চামড়া উঠে যায়। শুক্রবারও সেই ক্ষত হাতে ছ্যাঁকা দেয়া হয়।

ফেসবুক মন্তব্য
Share.