‘ঐক্যবদ্ধ নাগরিক আন্দোলন’র নিবন্ধন বাতিলে প্রজ্ঞাপন জারি

Google+ Pinterest LinkedIn Tumblr +

নিবন্ধন আইনের শর্ত পূরণ না হওয়ায় ‘ঐক্যবদ্ধ নাগরিক আন্দোলন’র নিবন্ধন বাতিল করেছে নির্বাচন কমিশন। ফলে এ দলটি আর তাদের প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে অংশ নিতে পারবে না।
বৃহস্পতিবার কমিশন সচিব হেলালুদ্দীন আহমদের সই করা এক প্রজ্ঞাপনে নির্বাচন কমিশন এ সিদ্ধান্ত জানিয়েছে।
প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশের ৯০বি এর শর্ত অনুযায়ী দলটির নিবন্ধন দেয়া হয়। উক্ত আইনের বিধান অনুযায়ী কেন্দ্রীয় দপ্তর, এক তৃতীয়াংশ প্রশাসনিক জেলা ও ১০০টি উপজেলা/থানা কার্যকর দপ্তরের সমর্থনে প্রামাণিক দলিলাদিসমূহ নির্ধারিত তারিখে জমা দেয়ার শর্ত থাকলেও দলটি তা করেনি। গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশের শর্ত লংঘন করায় দলটির নিবন্ধন ইসি বাতিল করলো।
নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা যায়, আইন অনুযায়ী নিবন্ধন পেতে এক তৃতীয়াংশ জেলা ও ১০০টি উপজেলায় কমিটি অথবা থানায় কার্যালয় থাকতে হয়। সে সময় ঐক্যবদ্ধ নাগরিক আন্দোলন শর্ত পূরণ করেই নিবন্ধন পেয়েছিল। চলতি বছরের জুনে নিবন্ধিত দলগুলোর বিষয়ে যাচাই বাছাইয়ের সময় ঐক্যবদ্ধ নাগরিক আন্দোলনের কাছে এসব কার্যালয় ও সাংগঠনিক কমিটির বিষয়ে তথ্য প্রমাণ চাওয়া হয়। কিন্তু বেধে দেয়া ১৫ দিনের মধ্যে তারা এসব তথ্য দেয়নি এবং শর্ত পূরণ করেনি। তাই তাদের নিবন্ধন বাতিল করা হয়েছে। অথচ অন্য সব রাজনৈতিক দলই প্রতিবেদন জমা দিয়েছে।
তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় ২০০৮ সালের ৮ অক্টোবর বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা প্রশিকার তৎকালীন চেয়ারম্যান কাজী ফারুক আহমেদের নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ নাগরিক আন্দোলনের আত্মপ্রকাশ ঘটে। ২০০৯ সালের ২৪ মে কাজী ফারুককে প্রশিকার চেয়ারম্যান পদ থেকে অপসারণ করা হয়। এর পর থেকে দলটির সক্রিয়তা কমে আসে।

ফেসবুক মন্তব্য
Share.