ইন্দুরকানীতে পলিথিন টানিয়ে শিক্ষার্থী ঝুকি নিয়ে ক্লাস করছে।

Google+ Pinterest LinkedIn Tumblr +

 

ইন্দুরকানী পিরোজপুর  প্রতিনিধি ।পাঁচ বছর ধরে ভবনজড়াজীর্ণ থাকায় পরিত্যক্ত ভবনে ৩ শতাধিক শিক্ষার্থী

ঝুকিনিয়ে ক্লাস করছে শিক্ষার্থীরা। ষাটের দশকে স্থাপিত
ইন্দুরকানী উপজেলার পত্তাশী ইউনিয়নের পত্তাশী
জনকল্যাণ মাধ্যমিক বিদ্যালয় সুনামের সাথে চলে আসছে।

প্রতি বছর এসএসসি ও জেএসসিতে ভাল ফলাফল করে
আসছে। ৬ষ্ঠ শ্রেণি থেকে ১০ম শ্রেণি পর্যন্ত পাঁচ
শে্িরণতে তিন শতাধিক ছাত্র-ছাত্রী রয়েছে। পাঁচ বছর
ধরে বিদ্যালয়টি জড়াজীর্ণ অবস্থায় থাকলেও কোন
সংস্কারের কাজ করা হয়নি ফলে বাধ্য হয়ে শিক্ষকরা বিদ্যালয়
ভবনে পলিথিন টানিয়ে ক্লাস করছে। এবছর বর্ষা মৌসুমের
শুরুতে ভবনের ছাদ থেকে পানি পড়ায় ক্লাস করতে বিঘœ
হওয়ায় বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ শিক্ষার্থীদের স্বার্থে পলিথিন
টানিয়ে ক্লাস করছে। সরজমিনে বিদ্যালয়টিতে গিয়ে দেখা
যায় ভবনটি একেবারে জড়াজীর্ন ও বিধ্বস্ত। প্লাস্টার খসে
পড়ছে, ছাদ থেকে পানি পরে বিদ্যালয়ের বারান্দা ও কøাশ
গুলো পানি কাদায় একাকার হয়ে গেছে। এর মধ্যে পলিথিন
টানিয়ে ক্লাশ করাচ্ছেন শিক্ষকরা।শিক্ষকদের বসার অফিস
কক্ষটিএকেবারে ঝুকিপূর্ন।তারা তাবু টানিয়ে অফিসের কাজ
করছে। দীর্ঘ পাঁচ বছর ধরে ভবনটি ব্যবহারের অযোগ্য

থাকায় প্রায় তিন শতাধিক ছাত্র ছাত্রীরা জীবনের ঝুকি নিয়ে
ক্লাশ করছে। অভিভাব দের দাবী অতি দ্রুত নুতন বিদ্যালয়
ভবন নির্মাণ অথবা সংস্কার করে শিক্ষার্থীদের ঝুকির হাত
থেকে রক্ষা করা। ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক (ভারপ্রাপ্ত)
অধির চন্দ্র সমদ্দার জানান, ভবন বিধ্বস্ত থাকায় ৩ শতাধিক
শিক্ষার্থীদের ঝুকির মধ্যে পলিথিন টানিয়ে ক্লাস করাতে
হচ্ছে। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে একাধিক বার আবেদন
করলেও ভবন নির্মাণের জন্য কোন বরাদ্ধ পাওয়া যায়নি।
উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) মীর
একেএম আবুল খায়ের জানান, বিদ্যালয়টির অবস্থা খুবই
ঝুঁকিপূর্ণ। জাড়াজীর্ণ ভবনে ঝুকি নিয়ে ক্লাস করছে। বিষয়টি
কর্তৃপক্ষের কাছে একাধিক বার জানানো হয়েছে। কিন্তু
সুরহা হচ্ছে না। শিক্ষার্থীদের স্বার্থে দ্রুত বিদ্যালয় ভবন
নির্মাণ প্রয়োজন।

ফেসবুক মন্তব্য
Share.