আমরা দুই এমপি থেকে মুক্তি চাই

নির্বাচন কমিশনার (ইসি) মাহবুব তালুকদার বলেছেন, ‘আমরা দুই এমপি থেকে মুক্তি চাই। একটি হচ্ছে মানি পাওয়ার, অন্যটি মাসল পাওয়ার। এই দুটির হাত থেকে মুক্তি পেতে হবে।’

আজ মঙ্গলবার ময়মনসিংহ টাউন হলের অ্যাডভোকেট তারেক স্মৃতি অডিটোরিয়ামে ভোটার তালিকা হালনাগাদ কর্মসূচির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে নির্বাচন কমিশনার এই কথা বলেন।

এর আগে শহরের পণ্ডিতবাড়ি সড়কের ফেরদৌস আহমদ স্বপনের বাসায় দুই ছেলে ও মেয়েকে নতুন ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করে মাঠ পর্যায়ে হালনাগাদ ভোটার তালিকার কার্যক্রম শুরু করেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা। এ সময় আরো তিনজন নির্বাচন কমিশনার, বিভাগ ও জেলার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে পঞ্চমবারের মতো সারা দেশে ভোটার তালিকা হালনাগাদ কার্যক্রম শুরু করেছে নির্বাচন কমিশন। ২০১৫ সালের পর বাড়ি বাড়ি গিয়ে তথ্য সংগ্রহ করা হবে। কমিশন আশা করছে, বাদ পড়া ৩৫ লাখসহ নতুন ভোটাররা যুক্ত হবেন নতুন তালিকায়। যাঁরা ২০০০ সালের ১ জানুয়ারি কিংবা আগে জন্মগ্রহণ করেছেন, তাঁরাই কেবল এই হালনাগাদ ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হবেন। নতুন ভোটারদের তথ্য সংগ্রহ চলবে ৯ আগস্ট পর্যন্ত। ২ জানুয়ারি খসড়া তালিকা প্রণয়নের পর চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ করা হবে ৩১ জানুয়ারি। ওই ভোটার তালিকায় অনুষ্ঠিত হবে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার বলেন, রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে ঐকমত্য প্রয়োজন। নির্বাচনের মাঠ কী পদ্ধতিতে লেভেল প্লেয়িং করা যায়, সে ব্যাপারে সংলাপ হবে। সবার মতামত নেওয়া হবে।  গ্রহণযোগ্য হলে কমিশন প্রয়োগ করবে। দুর্বল ও প্রশ্নবিদ্ধ নির্বাচন হলে গণতন্ত্র প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে যায়। গণতন্ত্র সমুন্নত না থাকলে আত্মমর্যাদা থাকে না। আত্মমর্যাদাশীল জাতি হিসেবে বিশ্বে পরিচয় দিতে চায় কমিশন।

তথ্য সংগ্রহকারীদের নির্ভুলভাবে তথ্য সংগ্রহের আহ্বান জানিয়ে নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার বলেন, ‘সুষ্ঠু নির্বাচনের পূর্বশর্তই হলো নির্ভুল ভোটার তালিকা। কেউ যদি বাধা দেয় বা কেউ যদি কাজে শিথিলতা দেখায় তবে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে। প্রয়োজনে জেল-জরিমানা করতে পিছপা হব না।’ নির্বাচন যাতে প্রশ্নবিদ্ধ না হয় সে জন্য কমিশন সব ব্যবস্থা নেবে বলেও জানান তিনি।

মাঠপর্যায়ে নিয়োজিত নির্বাচন কর্মকর্তাদের উদ্দেশে নির্বাচন কমিশনার বলেন, ‘নির্বাচন কোনো রিয়েলিটি শো নয়, সততা ও  নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করুন।’ কোনো প্রকার অনিয়ম বরদাশত করা হবে না বলেও হুঁশিয়ারি জানান তিনি।

নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. মোখলেসুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন সিইসি কে এম নূরুল হুদা, জাতীয় পরিচয়পত্র নিবন্ধন অনুবিভাগের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সাইদুল ইসলাম, ময়মনসিংহ বিভাগের ভারপ্রাপ্ত কমিশনার মো. মোজাম্মেল হক, পুলিশের ময়মনসিংহ রেঞ্জের উপমহাপরিদর্শক (ডিআইজি) নিবাস চন্দ্র মাঝি, ময়মনসিংহের ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক আরিফ আহমেদ খান, পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম ও আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা মোহা. ইসরাইল হোসেন।

এ সময় নির্বাচন কমিশনার মো. রফিকুল ইসলাম, কবিতা খানম ও ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) শাহাদাত হোসেন চৌধুরী মঞ্চে উপবিষ্ট ছিলেন। ময়মনসিংহ জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ইউসুফ খান পাঠান, মেয়র ইকরামুল হক টিটু, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট জহিরুল হক খোকাসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তি, নির্বাচন কর্মকর্তাসহ জনপ্রতিনিধি, শিক্ষাবিদ, আইনজীবী ও সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।

Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» ‘ঝিনুকদহ ভাষা পরিষদের’ ঘোষিত তিন দিনের কর্মসূচী সফল ভাবে পালিত

» শুভ জন্মদিন- সাদিদুল ইসলাম (সাদিদ)

» কে এই সুন্দরী পুলিশ অফিসার

» চাকরি শুধু নগ্ন হয়ে বসে থাকা, বেতন জানলে চমকে যাবেন

» জামিনে এনে আসামিকে বিয়ে, আইনজীবীকেই হত্যা!

» চসিকের গৃহকর আপিল শুনানি ও অ্যাসেসমেন্ট স্থগিত

» ঝিনাইদহে ‌ঝিনুকদহ ভাষা পরিষদ-র অালোচনা সভা অনুষ্ঠিত

» পৃথিবীর বাইরে প্রাণের সন্ধান !

» গ্রাম থেকে আসা সেই মানশি এখন কোটি কোটি তরুণীর আদর্শ!

» সিএনজি অটোরিকশাও মিলবে অ্যাপে, ঘোষণা শিগগিরই

» মাগুরায় চলছে অবৈধ সিমের বাজার

» আয়ুর্বেদিক উপাদান হিসেবে নিম পাতার ব্যবহার

» চাঁদে ৫০ কিলোমিটার সুড়ঙ্গের হদিস মিলেছে

» আইফোন এক্সের ভেতরে যা রয়েছে ভিডিও সহ দেখুন

» নেকলেস পরার সঠিক কায়দা-কানুন

Design & Devaloped BY MyhostIT

,

আমরা দুই এমপি থেকে মুক্তি চাই

নির্বাচন কমিশনার (ইসি) মাহবুব তালুকদার বলেছেন, ‘আমরা দুই এমপি থেকে মুক্তি চাই। একটি হচ্ছে মানি পাওয়ার, অন্যটি মাসল পাওয়ার। এই দুটির হাত থেকে মুক্তি পেতে হবে।’

আজ মঙ্গলবার ময়মনসিংহ টাউন হলের অ্যাডভোকেট তারেক স্মৃতি অডিটোরিয়ামে ভোটার তালিকা হালনাগাদ কর্মসূচির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে নির্বাচন কমিশনার এই কথা বলেন।

এর আগে শহরের পণ্ডিতবাড়ি সড়কের ফেরদৌস আহমদ স্বপনের বাসায় দুই ছেলে ও মেয়েকে নতুন ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করে মাঠ পর্যায়ে হালনাগাদ ভোটার তালিকার কার্যক্রম শুরু করেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা। এ সময় আরো তিনজন নির্বাচন কমিশনার, বিভাগ ও জেলার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে পঞ্চমবারের মতো সারা দেশে ভোটার তালিকা হালনাগাদ কার্যক্রম শুরু করেছে নির্বাচন কমিশন। ২০১৫ সালের পর বাড়ি বাড়ি গিয়ে তথ্য সংগ্রহ করা হবে। কমিশন আশা করছে, বাদ পড়া ৩৫ লাখসহ নতুন ভোটাররা যুক্ত হবেন নতুন তালিকায়। যাঁরা ২০০০ সালের ১ জানুয়ারি কিংবা আগে জন্মগ্রহণ করেছেন, তাঁরাই কেবল এই হালনাগাদ ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হবেন। নতুন ভোটারদের তথ্য সংগ্রহ চলবে ৯ আগস্ট পর্যন্ত। ২ জানুয়ারি খসড়া তালিকা প্রণয়নের পর চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ করা হবে ৩১ জানুয়ারি। ওই ভোটার তালিকায় অনুষ্ঠিত হবে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার বলেন, রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে ঐকমত্য প্রয়োজন। নির্বাচনের মাঠ কী পদ্ধতিতে লেভেল প্লেয়িং করা যায়, সে ব্যাপারে সংলাপ হবে। সবার মতামত নেওয়া হবে।  গ্রহণযোগ্য হলে কমিশন প্রয়োগ করবে। দুর্বল ও প্রশ্নবিদ্ধ নির্বাচন হলে গণতন্ত্র প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে যায়। গণতন্ত্র সমুন্নত না থাকলে আত্মমর্যাদা থাকে না। আত্মমর্যাদাশীল জাতি হিসেবে বিশ্বে পরিচয় দিতে চায় কমিশন।

তথ্য সংগ্রহকারীদের নির্ভুলভাবে তথ্য সংগ্রহের আহ্বান জানিয়ে নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার বলেন, ‘সুষ্ঠু নির্বাচনের পূর্বশর্তই হলো নির্ভুল ভোটার তালিকা। কেউ যদি বাধা দেয় বা কেউ যদি কাজে শিথিলতা দেখায় তবে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে। প্রয়োজনে জেল-জরিমানা করতে পিছপা হব না।’ নির্বাচন যাতে প্রশ্নবিদ্ধ না হয় সে জন্য কমিশন সব ব্যবস্থা নেবে বলেও জানান তিনি।

মাঠপর্যায়ে নিয়োজিত নির্বাচন কর্মকর্তাদের উদ্দেশে নির্বাচন কমিশনার বলেন, ‘নির্বাচন কোনো রিয়েলিটি শো নয়, সততা ও  নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করুন।’ কোনো প্রকার অনিয়ম বরদাশত করা হবে না বলেও হুঁশিয়ারি জানান তিনি।

নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. মোখলেসুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন সিইসি কে এম নূরুল হুদা, জাতীয় পরিচয়পত্র নিবন্ধন অনুবিভাগের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সাইদুল ইসলাম, ময়মনসিংহ বিভাগের ভারপ্রাপ্ত কমিশনার মো. মোজাম্মেল হক, পুলিশের ময়মনসিংহ রেঞ্জের উপমহাপরিদর্শক (ডিআইজি) নিবাস চন্দ্র মাঝি, ময়মনসিংহের ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক আরিফ আহমেদ খান, পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম ও আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা মোহা. ইসরাইল হোসেন।

এ সময় নির্বাচন কমিশনার মো. রফিকুল ইসলাম, কবিতা খানম ও ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) শাহাদাত হোসেন চৌধুরী মঞ্চে উপবিষ্ট ছিলেন। ময়মনসিংহ জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ইউসুফ খান পাঠান, মেয়র ইকরামুল হক টিটু, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট জহিরুল হক খোকাসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তি, নির্বাচন কর্মকর্তাসহ জনপ্রতিনিধি, শিক্ষাবিদ, আইনজীবী ও সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।

Facebook Comments

সর্বশেষ আপডেট



এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



   

© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিতঃ ২০১৭ । বিডি টাইপ পত্রিকা আগামী প্রজন্মের মিডিয়া

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি