আকন্দ গাছের উপকারীতা

Google+ Pinterest LinkedIn Tumblr +

আকন্দ গাছের ছাল ধুসর বর্ণের এবং কান্ড শক্ত ও কচি এবং ডাল লোমযুক্ত। গাছের পাতা, শাখা ভাঙলে দুধের মত সাদা আঠা বের হয়। সাদা বা বেগুনি বর্ণের ফুল হয়।
বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলে আকন্দ জন্মে।

নিচে আকন্দ গাছের গুণাগুণ বা উপকারিতা নিয়ে আলোচনা করা হলো। যেমনঃ

★ আকন্দের কষ তুলায় ভিজিয়ে লাগালে দাঁত ব্যথা দুর করে এবং যোনিতে ধারণ করলে গর্ভপাত ঘটায়।

★ আকন্দ পাতার সোজা দিকে সরিষার তেল মাখিয়ে পাতাটি অল্প গরম করে পেটের উপর রাখলে বা ছেঁক দিলে পেট কামড়ানো বা পেট জ্বালা বন্ধ হয়ে যায়।

★খোস-পাচড়া বা একজিমার ক্ষেত্রে আকন্দের আঠার সঙ্গে চার গুণ সরিষার তেল মিশিয়ে গরম করে এই গরম তেলের সঙ্গে কাঁচা হলুদের রস মিশিয়ে খোস পাচড়ায় মাখলে তা ভালো হয়ে যায়।

★ পা মোচকে গেলে প্রচণ্ড ব্যথায় এই আকন্দ পাতা দিয়ে গরম ছেক দিলে ব্যথা উপশম হয়।

★আকন্দ বাত বেদনা নিবারক ও ফোলা অপসারক। আকন্দ পাতা ও হলুদের তৈরি বড়ি -শোথ,ফোলা,পান্ডু রোগ নাশক এবং রস কৃমি নাশক।

★ অম্বল বা এসিডিটি দেখা দিলে: ০.৬৫ গ্রাম পরিমাণ আকন্দ পোড়া ছাই পানিসহ পান করলে সঙ্গে সঙ্গে উপকার পাওয়া যায়।

★ কোন স্থান ফুলে উঠলে আকন্দ পাতা বেঁধে রাখলে উপকার পাওয়া যায়।

★ নিউমোনিয়াজনিত বেদনায় আকন্দ পাতার সোজা দিক ঘি মেখে ব্যথার জায়গায় বসিয়ে লবনের পুটলি দিয়ে ছেক দিলে উপকার হয়।

★ আকন্দ গাছের মূলের ছাল শুকিয়ে চূর্ণ করে আকন্দের আঠা দিয়ে মুড়িয়ে বিড়ির মতো করে বানিয়ে সেটি ধরিয়ে ধোয়া টানলে হাঁপানি লাঘব হয়।

★ আকন্দ পাতা ওষুধ হিসেবে ব্রণ ফাটাতে সাহায্য করে। আকন্দ পাতা দিয়ে ব্রণ চেপে বেঁধে রাখলে ব্রণ ফেটে যায়।

★ বুকে সর্দি বসে গেলে ভালো করে পুরনো ঘি বুকে মেখে  আকন্দের পাতা গরম করে ছেক দিলে সর্দি ভালো হয়।

★ আকন্দ চুলের রোগ, ব্যাথা এবং বিষনাশে বিশেষ কার্যকরী।

★ দাদ ও টাকপড়া নিবারন করে।

★ হাঁপানি রোগের মহৌষধ আকন্দ পাতা। ১৪টি আকন্দ ফুলের মাঝখানে চৌকো অংশটি নিতে হবে। তারসঙ্গে ২১টি গুল মরিচ দিয়ে একসঙ্গে বেটে ২১টি বড়ি বানাতে হবে। প্রতিদিন সকালে পানি দিয়ে ১টি বড়ি খেলে হাঁপানি রোগের উপশম হয়। এই ওষুধ খাওয়ার সময় পথ্য হিসেবে শুধু দুধ ভাত খেতে হয়। এতে শ্বাসকষ্ট কেটে যায়।

★ বিছে কামড়ালে জ্বালা-পোড়া কমাতে আকন্দ পাতা ব্যবহার করলে উপশম হয়।

★ শরীরের কোনো স্থানে  ক্ষত হলে সেই স্থানটিতে আকন্দ পাতা সেদ্ধ পানি দিয়ে ধুয়ে দিতে হয়। এতে পুঁজ হয় না।

ফেসবুক মন্তব্য
Share.